ইন্টারনেট থেকে ইনকামের সঠিক গাইড লাইন

আমরা অনেকেই ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করতে চাই কিন্তু সঠিক রাস্তা জানা নেই সে জন্য আমরা ইনকাম করতে পারি না। আজ আমি আপনাদের সঠিক রাস্তা দেখাবো, যদি আপনারা ঠিকমত কাজ করেন তাহলে সাকসেস আসবেই। প্রথমেই বলে রাখি ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে এখানে ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। আপনি যদি চান এখনি কাজ করে এখনি পেমেন্ট নিবেন, তা হলে হবে না। তা হলে চলুন সেই রাস্তা গুলো কি কি আমরা জেনে নি…….

এটা সবার কাছেই পরিচিত। যদিও এখানে ক্যারিয়ার গড়তে আপনাকে আনেক পরিশ্রম করতে হবে। তারপর আপনার সাফল্য আসবে।এখানে আপনার নলেজ বা আপনি যে বিষয়ের প্রতি অভিগ্য তার উপরেই লিখুন আর পাবলিস করুন। আপনার ব্লগে যত ভিজিটর আসবে ততো তারাতারি আপনি গুগোল এডসেন্স এপ্রুভ নিতে পারবেন। তবে এখানে আপনি অন্যের লেখা কপি পেস্ট করবেন না। তাহলে গুগোল আডসেন্স সাসপেন্ড করে দিবে আপনাকে। এখানে শুধু আপনার নিজের নলেজ কেই প্রকাশ করুন। যদি সঠিক ভাবে কাজ করতে পারেন তা হলে এটিই হয়ত আপনার ক্যারিয়ার/জীবন পাল্টিয়ে দিবে।

ব্লগিং তৈরি করার জন্য অনেক ফ্রি ব্লগ সাইট রয়েছে। এদের মধ্যে অন্যতম হলো-www.blogger.com, / www.wordpress.com এই দুইটাই সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। আপনার মোবাইলে ব্লগ খুলতে পারবেন ও চালাতে পারবেন।

আমি পরবর্তীতে দেখাবো মোবাইল থেকে কিভাবে ব্লগ তৈরী করবেন তাও আবার ওয়েবসাইট এর মত দেখতে।

যতগুলো সহজ পথ আছে তার মধ্যে স্থায়ী এবং সব থেকে সহজ উপায় হল ইউটিউব থেকে ইনকাম। এটা বর্তমানে জনপ্রিয় একটি বিষয়। এখানেও আপনাকে ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। প্রথমেই আপনাকে একটা জিমেইল একাউন্ট খুলতে হবে তারপর ইউটিউব এ গিয়ে চ্যাঁনেল বানাবেন, যেহেতু ইউটিউব ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফ্রম তাই আপনাকে ভিডিও তৈরি তরে আপলোড করতে হবে। এটাও আপনি মোবাইল দিয়ে তৈরি করতে পারবেন।

প্রথমেই হয়ত ভিজিটর কম আসবে, তবে আপনাকে কাজ করেই যেতে হবে। ধীরে ধীরে ভিজিটর আসবে আপনার চ্যাঁনেলে। এখানে সফলতা পেলে আপনার সারা জীবন ইনকাম হবে।

  • মোবাইল অ্যাপলিকেশন তৈরি করা

মোবাইল অ্যাপলিকেশন তৈরি করার জন্য প্রথমেই আপনাকে এডমোব একাইন্ট তৈরি করে নিবেন। www.admob.com/ এই খান থেকে একাইন্ট খিুলে নিবেন। তারপর এডকোড জেনারেট করে সেইগুলো সেভ করে রাখবেন। এই গুলো পরে দরকার হবে।

আপনি অনেক ওয়েবসাইট পাবেন সেখানে ড্রাক এন্ড ড্রপ করে মোবাইল এপ্লিকেশন বানাতে পারবেন। যদি আপনার মোবাইলে পুফিন ব্রাউজার থাকে তাহলে আপনার মোবাইল থেকেই এপস তৈরি করতে পারবেন। এপস তৈরি করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হল-www.thunkable.com/ তার পর আপনি গুগোল প্লেস্টোরে আপলোড করে দিবেন, এখানেও আপনি সারা জীবন ইনকাম করতে পারবেন। এই বিষয়ে আমি পরবর্তীতে বিস্তারিত লেখব। সেখান থেকে এ টু-জেড জানতে পারবেন।

  • ওয়েবসাইট ডিজাইন

আপনারা যদি ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে পারেন, তা হলে আপনাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট, আর যদি না পারেন তা হলে শিখে নিতে পারেন। শিখে প্রফেশনালি কাজ শুরু করতে পারেন। এর জন্য ফাইবার, ফ্রিলান্সার, আপওয়ার্ক সহ আরও অনেক ওয়েবসাইট আছে সেখানে ওয়েবসাইট ডিজাইন এর কাজ করতে পারেন।

  • এস ই ও

এস ই ও এটাও একটা জনপ্রিয় কাজ। আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে এর কাজ করতে পারেন প্রফেশনালি। যদি আপনি এই বিষয়টি জানেন তাহলে আপনার জন্য প্লাস পয়েন্ট, আর যদি না জানেন তাহলে শিখতে পারেন।কারণ এটাও বর্তমানে বেপক জনপ্রিয় একটা কাজ।

পরবর্তিতে এর পাট টু আসছে। ততোক্ষণ ভালো থাকবেন, আর সাথেই থাকবেন।

Leave a Reply